ব্রেকিং নিউজ

মেলবোর্নের নাইট ক্লাবে বন্দুকবাজের হানা, মৃত এক

মেলবোর্ন একটি নাইট ক্লাবে বন্দুকবাজের হানা। ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির৷ মৃত ব্যক্তি ওই নাইট ক্লাবের নিরাপত্তারক্ষী বলে জানা গিয়েছে৷ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও তিনজন। তাঁদের ভরতি করা হয়েছে স্থানীয় হাসপাতালে৷ আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেই সূত্রের খবর৷ এখনও আততায়ীকে পাকড়াও করতে পারেনি পুলিশ৷ তাঁর খোঁজ চলছে৷

জানা গিয়েছে, রবিবার ভোরে স্থানীয় সময় ৩টে ২০ মিনিট নাগাদ মেলবোর্নের নাইট ক্লাবে অতর্কিতে হামলা চালায় ওই আততায়ী৷ নাইট ক্লাবের বাইরে এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে সে৷ গুলির আওয়াজ পেয়েই দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে দৌঁড়তে থাকেন সাধারণ মানুষ৷ গুলিবিদ্ধ হন ওই নাইট ক্লাবের নিরাপত্তারক্ষী৷ ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর৷ আহত হন আরও তিনজন৷ মেলবোর্ন পুলিশের শীর্ষ আধিকারিক অ্যান্ড্রিউ স্ট্যাম্পার জানান, “হামলার সময় নাইট ক্লাবের বাইরে প্রচুর ভিড় ছিল। সুযোগ বুঝেই নাইট ক্লাবের বাইরে গুলি চালায় আততায়ী।”

প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ জানতে পেরেছে, ভোর ৩টে নাগাদ দ্রুত গতিতে একটি কালো রঙের এসইউভি গাড়ি চড়ে নাইট ক্লাবের বাইরে এসে অপেক্ষা করছিল আততায়ী৷ সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর ওই গাড়ি থেকেই এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে সে৷ এবং হামলার পর সেখান থেকে চম্পট দেয়৷ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ৷ তবে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে গাড়িটির খোঁজ চালাচ্ছেন তদন্তকারীরা৷ প্রসঙ্গত, কয়েকদিন আগেই এক সন্ত্রাসবাদীর হানায় রক্তাক্ত হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার প্রতিবেশী দেশ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্ট চার্চের দুটি মসজিদ৷ প্রার্থনা চলাকালীন মসজিদে হামলা চালায় এক আততায়ী৷ যাতে মৃত্যু হয় ৪৯ জনের৷ ১৯৯৬-তে অস্ট্রেলিয়ার পোর্ট আর্থুরে বন্দুকবাজের হামলায় মৃত্যু হয়েছিল ৩৫ জনের৷ সেই হামলার পর থেকে অস্ট্রেলিয়ায় অস্ত্র আইন অনেক বেশি কঠোর করা হয়েছে৷ কিন্তু এরপরেও কীভাবে আততায়ীদের কাছে অস্ত্র এল, তা ভাবাচ্ছে প্রশাসনকে৷

About editor

Leave a Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com